• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • রোববার, ২৬ জুন ২০২২, ১২ আষাঢ় ১৪২৯

সরছেন না প্রেসিডেন্ট, শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহে

সরছেন না প্রেসিডেন্ট, শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী বিক্রমাসিংহে

ছবি- (বাঁ থেকে) গোতাবায়ে রাজাপাকসে ও রনিল বিক্রমাসিংহে।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

শ্রীলঙ্কায় রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও উত্তেজনা চরমে। এরই মধ্যে দেশটির প্রধানমন্ত্রী মাহেন্দ্রা রাজাপাকসে পদত্যাগ করেছেন। তারপরও থামেনি সরকারবিরোধী আন্দোলন। বিক্ষুব্ধ জনতার দাবি, প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগ। কিন্তু দেশটির প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ করতে চাইছেন না বলে জানিয়েছে ডেইলি মিরর। তবে মাহিন্দা রাজপাকসের পদত্যাগের পর শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বর্ষিয়ান রাজনীতিক রনিল বিক্রমাসিংহে।

জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া এক ভাষণে পদত্যাগ না করার ঘোষনা দিয়েছেন গোতাবায়ে। প্রেসিডেন্টের এমন ঘোষনার পরই দেশটিতে নতুন করে বিক্ষোভ জোরালো হয়েছে।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটিতে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর এই প্রথম জাতির উদ্দেশে কোনো ভাষণ দিলেন প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসে। ভাষণে তিনি প্রেসিডেন্টের কিছু ক্ষমতা সংসদের কাছে হস্তান্তর করার প্রস্তাব দেন, যদিও নির্দিষ্ট কোনো সময়সীমার কথা তিনি উল্লেখ করেননি।

তবে প্রেসিডেন্টের বক্তব্যের পর অনেকেই সমালোচনা করছেন যে, তার বক্তব্য আসল সমস্যাগুলোর সমাধান দিতে ব্যর্থ হয়েছে। এদিকে বিক্ষোভকারীরা কারফিউ ভেঙ্গে দ্বিতীয় রাতের মতো বিক্ষোভ করেছে। তাদের দাবি এখন প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ।

একজন বিক্ষোভকারী বিবিসি তামিল সার্ভিসকে বলেছেন, ‘কারফিউ ভেঙ্গে আমাদের এই বিক্ষোভ করতে হচ্ছে কারণ আমাদের কোনো উপায় নেই। আমরা এখনো ভোগান্তির শিকার হচ্ছি। এখনও কেরোসিন, পেট্রোল, ডিজেল এবং বিদ্যুৎ নেই।’

এদিকে শ্রীলঙ্কায় সেনা অভ্যুত্থানের গুজব ছড়িয়েছে। কলোম্বোর রাস্তায় বিপুল সংখ্যায় সৈন্যদের অস্ত্রসজ্জিত গাড়িবহর দেখে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

গুজব ছড়ানোর পর বিরোধী রাজনীতিবিদরা সতর্ক করে বলেছেন, এই সহিংসতা সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখলের অজুহাত হিসেবে দেখাতে পারে। কিন্তু সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে এধরনের পরিকল্পনার কথা নাকচ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি তামিল সার্ভিস।

এর আগে ভাষণে প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে বলেছেন, তিনি অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করবেন,তার উদ্দেশ্য ঐক্যমত্যের সরকার তৈরি করা। কিন্তু প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দল বলেছে, প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ না করা পর্যন্ত তারা অন্তর্র্বতীকালীন প্রশাসনের অংশ হবে না।

এদিকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে শ্রীলঙ্কার নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন রনিল বিক্রমাসিংহে। তিনি লঙ্কান রাজনৈতিক দল ইউএনপির নেতা।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় সাড়ে ৬টায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন তিনি। শ্রীলঙ্কান সংবাদমাধ্যম ডেইলি মিরর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সংবাদমাধ্যমটি বলছে, গত সোমবার শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে সরে দাঁড়ান মাহিন্দা রাজপাকসে। এরপর বুধবার সন্ধ্যায় প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসের সাথে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন রনিল বিক্রমাসিংহে। তিনিই আজ দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন।

১২ মে ২০২২, ০৪:১৫পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।