• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • সোমবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯

হোটেল বিল পরিশোধ জটিলতা: ভুয়া খবর ছড়ানোর প্রতিবাদ ফোবানা’র

হোটেল বিল পরিশোধ জটিলতা: ভুয়া খবর ছড়ানোর প্রতিবাদ ফোবানা’র

ফাইল ছবি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

আর্থিক অনিয়ম ও হোটেল বিল না মিটিয়ে গা ঢাকা দেয়ার ভুয়া খবর প্রকাশের ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে ফেডারেশন অব বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন্স ইন নর্থ আমেরিকা (ফোবানা)। উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশি প্রবাসীদের প্রভাবশালী সংস্থা ফোবানা’র চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান ও নির্বাহী সম্পাদক ড. রফিক খান স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

গণমাধ্যমে পাঠানো ফোবানা’র চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান ও নির্বাহী সম্পাদক ড. রফিক খান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে সম্প্রতি “যুক্তরাষ্ট্রে ৮ বাংলাদেশীকে খুঁজছে ম্যারিয়ট হোটেল” শিরোনামে যে খবরটি প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণভাবে মিথ্যা। খবরটি একটি কুচক্রী মহলের দ্বারা লিখিত এক মিথ্যা রটনা। এটি আমাদের গড়া অপরাধীমুক্ত ও পরিচ্ছন্ন ‘ফোবানা’কে ধ্বংস করার অপচেষ্টা। এই কুচক্রী মহলটি হচ্ছে ‘ফোবানা’ নামধারী স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্র যাদের অনেক সদস্যরা ইন্সুরেন্স ফ্রড, ইমিগ্রেশন ফ্রড সহ আরো বিভিন্ন অবৈধ কাজের জন্য ফেডারেল কোর্টে সাজাপ্রাপ্ত আসামী।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সংঘবদ্ধ অবৈধ মহলের নেতারা, বেশ কয়েকজন নির্বাহী সদস্যদের হাতকরে ‘ফোবানা’কে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছিলো। তারা ফোবানার সংবিধান ভঙ্গ করেছে, তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুকেও মানেনা। এই চক্রটি ২০২১ সালে ওয়াশিংটন ডি.সি. তে অনুষ্ঠিত ফোবানা সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর ১০০তম জন্মবার্ষিকী উৎযাপনের সময় প্রকাশ্যে বাঁধা দিয়েছিলো। সব দিক বিবেচনা করে, আমাদের প্রিয় সংগঠন ফোবানাকে বাঁচানোর জন্য ২০২১ সালের জুনে সাধারন সভা ডেকে সম্পুর্ন সাংবিধানিক ভাবে ওই কুচক্রী মহল দ্বারা পরিচালিত নির্বাহী কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করা হয়। সাথে সাথে এই কুচক্রী মহলের যারা কর্ণধার, তাদেরকে ফোবানা থেকে বহিষ্কার করে একটি অপরাধীমুক্ত, বাংলাদেশের স্বাধীনতাপন্থী ও একটি স্বচ্ছ ‘ফোবানা’ নির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়। এর মাত্র ২-৩ মাসের মধ্যে আমেরিকার লস এঞ্জেলেসে ৩৬তম ফোবানা সম্মেলনটি সার্থক ভাবে আয়োজন করা হয়। ফোবানার এই নতুন সূর্যোদয় ও সাফল্য দেখে কুচক্রী মহলটি আমাদের এই মহান যাত্রাকে ধ্বংস করার জন্য মিথ্যা প্রচারের আশ্রয় নিয়েছে। আমাদের পরিচ্ছন্ন ফোবানার সকল সদস্য সমাজের নিজ নিজ জায়গায় সুপ্রতিষ্ঠিত এবং এই নোংরা মানসিকতার সদস্যদের দিয়ে পরিচালিত ফোবানার সাথে আমাদের কোনো প্রকার সম্পৃক্ততা নেই। সকল বাংলাদেশী ভাই-বোনদের এই অপপ্রচার বিশ্বাস না করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

বিজ্ঞপিতে উল্লেখ করা হয়েছে, আপনারা অনেকেই জানেন যে, গত ২-৪ সেপ্টেম্বর লস এঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত হয় ৩৬তম ফোবানা সম্মেলন। যা হোস্ট করে ‘বাংলাদেশ এসোসিয়েশনস অফ গ্রেটার লস এঞ্জেলেস’। যার সাথে সম্পৃক্ত ছিল লস এঞ্জেলেসের আরও ৬টি সংগঠন। অতি অল্প সময়ের মধ্যে তারা সবাই মিলে একটি বিশাল ও সুন্দর ফোবানা সম্মেলন উপহার দেয়, যা নাকি অনেক প্রশংসার দাবি রাখে। সম্মেলন শেষ হয়ে যাওয়ার পর তাদের অনেক বিল পরিশোধ করতে হয় এবং এখনো কিছু বিল পরিশোধ করা হচ্ছে। কাজেই, হোস্ট কমিটি বেশ কয়েকটি চেক একসাথে বিভিন্ন ভেন্ডরকে দেন এবং তার মধ্যে বারব্যাংক ম্যারিয়ট কে দেয়া দু-একটি চেক ইনসাফিসিয়েন্ট ফান্ডের কারণে ফেরত আসে। এ ব্যাপারটি কিছুদিন হোস্ট কমিটির নজরে পড়েনি এবং ইতিমধ্যে হোটেল কতৃপক্ষ ভুল বসত ফোবানা-বিরোধী কিছু সদস্যের কাছে ই-মেইলের মাধ্যমে তা জানিয়ে দেয়। এই সুযোগে এই কুচক্রী মহল এই খবরটি নোংরা ভাবে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশ করে যাচ্ছে এবং কিছু সংবাদ মাধ্যম এর সত্যতা যাচাই না করে তা প্রকাশ করে যাচ্ছে। আমরা এই ঘৃণ্য প্রচারণার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

ফোবানার বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আপনাদের সকলের অবগতির জন্য আরো জানানো যাচ্ছে যে, ম্যারিওট হোটেলের সাথে হোস্ট কমিটির প্রেসিডেন্ট জাহিদ হোসেন বিল পরিশোধের ব্যাপারে একটি পেমেন্ট প্ল্যানের মাধ্যমে সমাধানে পৌঁছেছেন। হোস্ট কমিটি বা সেন্ট্রাল কমিটির সকল নির্বাহী সদস্যরা আনন্দের সাথে মুক্ত ভাবে জীবন যাপন করছেন। কেউ কোথাও লুকিয়ে নেই। ফোবানা সম্মেলনে এমন আর্থিক ঘাটতি বিগত অনেক সম্মেলনে দেখা গেছে। ভেন্ডরদের পাওনা টাকা সময় নিয়ে পেমেন্ট প্ল্যানের মাধ্যমে অতীতেও পরিশোধ করা হয়েছে। এই সামান্য বিষয়কে মিথ্যা রং লাগিয়ে যারা নোংরা প্রচারণা চালাচ্ছে, আমরা তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবো। বারব্যাংক ম্যারিয়ট হোটেলের কাছে আমাদের প্রাইভেট ইনফরমেশন ভুল সদস্যের কাছে ছড়ানোর জন্য কৈফিয়ত চাইবো। এই মিথ্যা প্রচারণায়, আমাদের বেশ কয়েকজন সম্মানিত সদস্যের নামে অনেক মিথ্যা অপবাদ যুক্ত করে তাদের সম্মানহানির চেষ্টা করা হচ্ছে। এর বিরুদ্ধেও আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেবো। এসমস্ত তথ্য সম্পূর্ণ ভাবে মিথ্যা এবং বার বার মিথ্যা রটিয়ে এই নোংরা মহলটি আমাদের এ সুন্দর-সুষ্ঠ-অপরাধীমুক্ত ফোবানা গড়ার প্রচেষ্টাকে ধ্বংস করার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। আমাদের আসল লক্ষ্য হচ্ছে মূলধারার ফোবানাকে বাঁচিয়ে রাখা এবং এই কুচক্রী মহল থেকে ফোবানাকে রক্ষা করা। আশাকরি, আমরা আপনাদের সার্বিক সাহায্য পাবো। আমাদের আগামী ফোবানা সম্মেলন হতে যাচ্ছে মন্ট্রিয়ল, কানাডায় এবং আপনারা সপরিবারে আমন্ত্রিত।

০৯ জানুয়ারি ২০২৩, ০৪:৪৭পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।