• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বর্ষায় শিশুর ক্ষতি এড়াতে যা করবেন

বর্ষায় শিশুর ক্ষতি এড়াতে যা করবেন

প্রতিকী ছবি

ফিচার ডেস্ক

শিশুকে সুরক্ষিত রাখতে বাড়ির সবাইকে সবসময় সতর্ক থাকতে হয়। তারপরও শিশু কোনো না কোনো ক্ষতির মুখে পড়ে যায়। সামান্য অবহেলা বা অসতর্কতার কারণে শিশুর প্রাণহানীর ঘটনাও ঘটছে। পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু, ডায়রিয়া, হাত-পা কেটে যাওয়া, খাবার গলায় আটকে যাওয়ার মতো ঘটনা প্রায়ই ঘটে থাকে। আপনি চাইলে এ ধরণের অনাকাঙ্খিত ক্ষয়ক্ষতি থেকে শিশুকে সুরক্ষিত রাখা সম্ভব।

তেমনই কিছু টিপস নিয়ে আমাদের সামান্য প্রচেষ্টা। আশা করি, আপনার সন্তানের সুরক্ষায় আমাদের এই প্রচেষ্টা সহায়ক হবে।

খোলা পানি থেকে সুরক্ষা

এখন বর্ষাকাল। খাল, বিল, নদী-নালা, পুকুর পানিতে ভরে যাবে। বৃষ্টির পানি নিচু জমিতে জমে গিয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করবে। শিশুরা পানির প্রতি প্রবল আগ্রহী হয়। তাদেরকে পানিতে নেমে খেলতে দিবেন না। বাড়ির পাশে পুকুর বা ডোবা থাকলে নেট অথবা বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিয়ে দিন। শিশুদের খাল, বিল, নদী ও হাওরের পানিতে নামতে দিবেন না। সাঁতার না জানা শিশুকে পুকুরে বা খোলা পানিতে গোসল করানোর অভ্যাস করাবেন না। বর্ষাকালে শিশুকে চোখের আড়াল করবেন না।

ডায়রিয়ার ঝুঁকি কমান

বর্ষাকালে পরিবেশ ও প্রকৃতি স্যাঁতস্যেঁতে থাকে। শিশুরা যত্রতত্র খেলাধুলা করে এবং নোংরা হাত মুখে লাগায়। ফলে রোগজীবানু সহজেই শিশুর পেটে পৌছে যায়। এর ফলে শিশু ডায়রিয়াসহ নানা পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তাই, শিশুকে স্যাঁতস্যেঁতে নোংরা স্থানে খেলতে দিবেন না। শিশুকে শুকনো ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পরিবেশে খেলার সুযোগ করে দিন। শিশুর হাত যেন নোংরা না হয়, শিশু যেন নোংরা কোনো কিছু মুখে না দেয় সেদিকে খেয়াল রাখুন।

কাটা-ছেঁড়ায় করণীয়

শিশুরা চঞ্চল প্রকৃতির হয়। তারা দৌড়াবে, খেলবে, পড়ে যাবে আবার তারা উঠে দাঁড়াবে। শিশুরা হইচই করবে ঘর জুড়ে। এমন উদ্যাম খেলার সময় শিশু পড়ে গিয়ে আঘাত পেতে পারে। শিশুর হাত-পা কেটে যেতে পারে। এমনকি শিশুর হাটু, পায়ের গোড়ালি, হাতের কুনুই ছিলে যেতে পারে। এসব সমস্যা থেকে শিশুকে সুরক্ষিত রাখতে বাড়িতে স্যাভলন, জীবাণুনাশক জেল, ব্যথানাশক জেল এবং স্যানিটাইজার রাখুন। সামান্য কাটা-ছেঁড়ায় এসব উপাদান ব্যবহার করতে পারেন।

পোকা-মাকড় থেকে সাবধান

শিশুরা অবুঝ। বর্ষাকালে ঘরে বাইরে পোকামাকড়ের উপদ্রব বেড়ে যায়। ক্ষতিকর পোকামাকড় শিশুরা চিনতে পারে না। তারা খেলার জন্য পোকামাকড় ধরার চেষ্টা করে। আপনার শিশু যেন পোকামাকড় না ধরে এবং পোকামাকড়ের সংস্পর্শে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখুন। শোবার ঘর, বসার ঘর, রান্না ঘর এবং শিশুর খেলার জায়গা পরিষ্কার রাখুন। শিশুর নাগালের বাইরের রেখে পোকা তাড়ানোর ওষুধ ঘরে ব্যবহার করুন।

কাদা-পানিতে বেশি খেলা নয়

আপনার শিশুকে বৃষ্টির পানি ও কাদায় বেশিক্ষণ খেলতে দিবেন না। বৃষ্টিতে অধিক সময় ধরে ভেজার কারণে শিশুর জ্বর, ঠাণ্ডা ও কাশি হতে পারে। বৃষ্টি চলাকালে শিশুকে চোখের আড়ালে ভিজতে যেতে দেবেন না। বাড়ির উঠানে, সুরক্ষিত ছাদে অথবা নিজে সাথে থেকে শিশুকে কিছুটা সময় বৃষ্টিতে ভেজাতে পারেন। শিশুকে লাগাতার পানি-কাদায় খেলতে দেবেন না।

 

তথ্যসূত্র: জি নিউজ।

০৯ জুলাই ২০২৩, ০৭:৫৫পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।