• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১

নিস্তব্ধ নৈসর্গিক সুন্দর এক মহাসড়কের গল্প!

নিস্তব্ধ নৈসর্গিক সুন্দর এক মহাসড়কের গল্প!

ছবি- সংগৃহিত

ফিচার ডেস্ক

জেনে নেবো নিস্তব্ধ এক মহাসড়কের গল্প। ভূতুড়ে মরুর বুক চিরে বয়ে যাওয়া মহাসড়কের বাঁকে বাঁকে রোমাঞ্চ। বিশ্বের রোমাঞ্চকর নিভৃত মহাসড়কগুলোর মধ্যে অন্যতম এটি। চীনের ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫। মহাসড়কটি এরই মধ্যে কোটি পর্যটকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

কি এই ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫?

চীন ১৯৫৪ সালে এই মহাসড়কটি নির্মাণ করে। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তি ও নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করে চীন এই মহাসড়ক গড়ে তোলে। মহাসড়কটি ‘কিংহাই-জিনজিয়াং হাইওয়ে’ নামেও পরিচিত। এটিই মূলত চায়না ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫।

এন ৩১৫ এর কিছু তথ্য

মহাসড়কটির দৈর্ঘ্যে ৩,০৬৩ কিলোমিটার বা ১ হাজার ৯০৩ মাইল। ১৯৯৪ সালে চীনের কিংহাই এবং জিনজিয়াং প্রদেশের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে এই মহাসড়কটি। এই মহাসড়কটির পশ্চিমে রয়েছে ঐতিহাসিক ‘সিল্ক রোড’। যার দক্ষিণে রয়েছে ‘কায়দাম’ মরুভূমি। গোবি মরুভূমির অংশ এই কায়দাম মরুভূমি।

মহাসড়ক ৩১৫ কেন বিশেষ?

তথ্যমতে, চীনের ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫ বা এন৩১৫ হল দেশটির মাং নাইয়ের দিকে যাওয়ার একমাত্র প্রধান পথ। এটিকে চীনের ‘দ্যা লোনলিয়েস্ট হাইওয়ে’ হিসাবেও বিবেচনা করা হয়। এটি গোবি মরুভূমি এবং জনশূন্য কায়দাম মরুর বিস্তীর্ণ বালুকাময় জমিগুলির মধ্য দিয়ে এগিয়ে গিয়েছে। এটি এমন এক মহাসড়ক যেখানে কখনো পাখির ডাকও শোনা যায় না।

তবে নিভৃত, নিস্তব্ধতা ও নিরিবিলি পরিবেশের কারণে এই মহাসড়কটি দিনে দিনে পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হচ্ছে। এই মহাসড়কে এখন প্রায়ই পর্যটকদের ভিড় দেখা যায়। অনেকেই মহাসড়ক ধরে মরুভূমির বিস্তীর্ণ এলাকায় নানা আয়োজন করে থাকে।

বৈচিত্র্যময় মহাসড়ক

বিশ্বের অন্যতম বৈচিত্রময় মহাসড়ক চীনের এই ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫। আমেরিকা, চিলি, মেক্সিকো ছাড়াও চীনের এই দীর্ঘ মহাসড়ক এখন সবার ওপরে। দীর্ঘসময় সমতল মহাসড়কের রেকর্ডও এখন চীনের দখলে। এই মহাসড়কের পাশে কখনো মরুভূমির বিস্তীর্ণ বালুরাশি, কখনো মহাসড়কের দুই পাশ লাল মাটির ঢেউ। এ ছাড়া মহাসড়কটির দুপাশে রয়েছে বনাঞ্চল, জলরাশি, মরুভূমি, মালভূমি ও সমতলভূমি।

এসব ভূমির মাটির রঙ কখনো লাল, কখনো বা ধুসর। আর এই বৈচিত্র্যময় রঙের মাটির কারণে চীনের ন্যাশনাল হাইওয়ে ৩১৫ এখন পর্যটকদের পছন্দের তালিকায় সবার ওপরে।

০৫ মে ২০২৪, ০১:৫৪পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।