• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • রোববার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

হলুদ যেভাবে কমিয়ে দেয় ইউরিক অ্যাসিড

হলুদ যেভাবে কমিয়ে দেয় ইউরিক অ্যাসিড

প্রতিকী ছবি

ফিচার ডেস্ক

অসহনীয় এক যন্ত্রণার নাম ইউরিক এসিড। এটি আবার গাউট বা গেটে বাত নামেও পরিচিত। তবে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায়, দেহে ইউরিক এসিডের পরিমাণ বেড়ে গেলে জয়েন্টে তীব্র ব্যথা হয়। এই ব্যথা গাউট বা গেটে বাত নামেও পরিচিত। দেহের ওজন বৃদ্ধি, অতিরিক্ত প্রোটিন গ্রহণ, অ্যালকোহল পানসহ অনিয়ন্ত্রিত জীবনধারার কারণে ইউরিক এসিড বেড়ে যেতে পারে। এটি দেহের কিডনি বিকল করে দিতে পারে। তাই, হাত পায়ের আঙুলের জয়েন্টে কিংবা কুনুইসহ জয়েন্টে তীব্র ব্যথা হলে অবহেলা না করাই উচিত।

গবেষকরা বলছেন, নিয়ম মেনে চললে ইউরিক এসিডের সমস্যা এড়িয়ে চলা যায়। এ ছাড়া ভেষজ উপাদান ব্যবহারের মাধ্যমেও ইউরিক এসিডের তীব্র যন্ত্রণা দ্রুত কমানো সম্ভব।

ইউরিক এসিড বাড়লে যে লক্ষণ

♦ হাত-পায়ের আঙুলের জয়েন্টে তীব্র ব্যথা।
♦ কুনুইয়ের জয়েন্টে ব্যথা হতে পারে।
♦ সুঁচালো কিছুর আঘাত লাগার অনুভূতি।
♦ আক্রান্ত স্থান হালকা ফুলে যাওয়া।
♦ আক্রান্ত স্থান হালকা লালচে রঙ ধারণ করা।

যে মসলায় দ্রুত কমবে ইউরিক অ্যাসিড

জনপ্রিয় মার্কিন স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েব জার্নাল হেলথ লাইন এ প্রকাশিত নিবন্ধে বলা হয়েছে, আদা, লেবু ও কাচা রসুন ইউরিক অ্যাসিড কমাতে দারুণ কার্যকরী। তবে কাচা হলুদ অথবা হলুদের গুঁড়া সবচেয়ে দ্রুত কাজ করে।

→ গবেষকরা বলছেন, ভেষজগুণ সমৃদ্ধ হলুদ পানিতে মিশিয়ে সরবতের মত পান করলে দ্রুত ইউরিক এসিডের ব্যথা কমে যায়।

→ হলুদে রয়েছে ‘কারকিউমিন’ নামক রাসায়নিক উপাদান দেহের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। ‘আর্থ্রাইটিস অ্যান্ড থেরাপি’ বিষয়ক এক গবেষণায় দেখা গেছে, কারকিউমিন নিউক্লিয়ার ফ্যাক্টর-কাপ্পা বি (এনএফ-কাপ্পা বি) নামক একটি প্রোটিনকে দমন করতে পারে। যা প্রধানত গাউট বা গেটে বাত নিরাময়ে দারুণ ভাবে সফল।

→ এ ছাড়া ওপেন জার্নাল অব রিউমাটোলজি অ্যান্ড অটোইমিউন ডিজিজেস’এ প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়েছে, হলুদে থাকা কারকিউমিন প্রদাহ দুর করে। এটি দেহের অন্যান্য প্রদাহও নিয়ন্ত্রণ করে।

→ ২০১৮ সালে ‘বিএমসি কমপ্লিমেন্টরি অ্যান্ড অলটারনেটিভ মেডিসিন’ এর গবেষণায় উঠে এসেছে, জয়েন্টের ব্যথা ও দেহের অন্যান্য প্রদাহ বিনাশে হলুদ চমৎকার কাজ করে। হলুদ মিশ্রিত পানি আর্থ্রাইটিস সহ অন্যান্য জয়েন্টের ব্যথা সবচেয়ে দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনে।

হলুদ খাওয়ার নিয়ম

⇒ গবেষকরা বলছেন, হলুদ চা খেতে পারেন। এজন্য হালকা গরম পানিতে কাঁচা হলুদ বেটে অথাব হলুদের গুঁড়ার মিশিয়ে নিতে পারেন।

⇒ পানিতে এক টুকরো কাঁচা হলুদের রস মিশিয়ে পান করুন। দ্রুত ইউরিক অ্যাসিডের ব্যথা কমে যাবে। দিনে সর্বোচ্চ ৫০/৬০ গ্রাম কাঁচা হলুদের রস পান করা নিরাপদ।

 

তথ্যসূত্র: হেলথ লাইন।

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৭:৩৬পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।