• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১

ডেঙ্গু জ্বরের ঘরোয়া চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বরের ঘরোয়া চিকিৎসা

প্রতিকী ছবি

ফিচার ডেস্ক

দেশে হু হু করে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। রাজধানীতে প্রতিদিন ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটছে। হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে রোগীর চাপ। বর্ষাকালে যেকোনো জ্বর হলেই অনেকেই মনে করেন, ডেঙ্গু জ্বর হলো বোধহয়। কিন্তু, আপনাকে জানতে হবে সব জ্বর ডেঙ্গু জ্বর নয়। এ ছাড়া আপনার সচেতনতা ডেঙ্গুর প্রকোপ কমাতে সহায়ক। তাই, নিজের ঘরের চারপাশ পরিষ্কার রাখুন। বাড়ির পাশে জমে থাকা পানি সরিয়ে দিন। সবাই মিলে সচেতন হলে ডেঙ্গুর প্রকোপ কমানো সম্ভব।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ

এই জ্বরের তীব্র বেশি। সাধারণত ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর দেহে ১০২ থেকে ১০৫ ফারেনহাইট তাপমাত্রা থাকে। সেই সঙ্গে তীব্র শরীরব্যথা, পিঠে এবং মাংসপেশীতে ব্যথা থাকে। এ ছাড়া চোখের চারপাশ এবং চোখের ভিতরে ব্যথা অনুভূত হতে পারে। কারো কারো ক্ষেত্রে বমি বমি ভাব, পেট ব্যথা, ক্ষুধামন্দ্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, অরুচি এবং শরীরে গোটা গোটা লাল ঘামাচির মতো হতো পারে।

ডেঙ্গ জ্বর সনাক্ত করবেন যেভাবে

উপরোক্ত উপসর্গগুলো থাকলে প্রাথমিক ভাবে ধরে নিতে হবে যে, রোগী ডেঙ্গু পজিটিভ। তবে রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত কিনা সেটি যত দ্রুত সম্ভব ক্লিনিক্যালি পরীক্ষা করে নেয়া উচিত। এ ক্ষেত্রে জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার প্রথম পাঁচ দিনের মধ্যে ডেঙ্গু এনএসওয়ান টেস্ট করুন। এর সঙ্গে সিবিসি, এসজিপিটি এবং এসজিওটি টেস্ট করা জরুরি।

ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর ঘরোয়া চিকিৎসা

জাপানের একদল গবেষক বলছেন, ডেঙ্গু আক্রান্ত হলে ভয় না পেয়ে ঘরে বসেই চিকিৎসা করা সম্ভব। মনে রাখতে হবে, ঘরের সেবা রোগীর জন্য উত্তম সেবা। তবে রোগীর অবস্থা জটিল হলে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে।

→ ডেঙ্গু মূলত ভাইরাসজনিত জ্বর। তাই, নিম পাতার রস রোগীতে সীমিত আকারে দিনে একবার কয়েক চামচ খাওয়ানোর চেষ্টা করুন। নিম পাতার রস রক্তের প্লাটিলেট বাড়াতে সাহায্য করে।

→ ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর দেহে দ্রুত পানি কমতে থাকে। ফলে ডিহাইড্রেশনে অনেক রোগীর ক্ষতি হয়ে যায়। তাই, রোগীকে বেশি বেশি পানি পান করান। বেশি পানি পান করালে মাথা ব্যথা ও শরীরের অন্যান্য ব্যথা কমে যাবে।

→ ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর দেহে প্লাটিলেট দ্রুত কমতে থাকে। এর ফলে অনেক রোগী মারা যান। তাই, প্লাটিলেট বাড়ানোর জন্য রোগীকে পর্যাপ্ত ভিটামিন সি জাতীয় ফল খাওয়ান। বিশেষ করে পেঁপেঁ পাতার জুস প্লাটিলেট দ্রুত বাড়িয়ে দেয়।

→ ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীকে দিনে ৩/৪ টা তাজা পুদিনা পাতা চিবিয়ে খাওয়ানোর চেষ্টা করুন। এটি জ¦র সারাতে খুবই কার্যকরী। পুদিনা পাতার গন্ধ মশা তাড়াতেও ব্যাপক কাজ করে।

→ বলছেন, ডেঙ্গু রোগীদের জন্য তুলসী পাতার রস অনন্য। এই পাতার রস দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এটি মুখের রুচি ফেরাতেও সহায়ক।

→ ব্রকোলি, ফুলকপি, টমেটো, লাউ, শাক এবং উচ্ছে বা করোলা ডেঙ্গু রোগীর জন্য খুবই উপকারি। এই সবজিগুলো দেহে রক্ত জমাট বাধতে বাধা দেয়। ফলে প্লাটিলেটের মাত্রা ঠিক থাকে।

পরামর্শ:

বাড়িতে থাকা ডেঙ্গু রোগীকে উপরোক্ত সেবা দেয়ার পাশাপাশি চিকিৎসকের পরামর্শ মতে প্যারাসিটামলজাতীয় ওষুধ দিতে পারেন। রোগীর প্রচুর বিশ্রামের প্রয়োজন। তাই, রোগীর পাশে অহেতুক জটলা করে তাকে বিরক্ত করবেন না। রোগীকে নিয়ম করে হাটাচলা করার জন্য সহযোগীতা করুন। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর যদি ডায়রিয়া হয়ে থাকে, তাহলে তাকে খাবার স্যালাইন ও তরল খাবার বেশি বেশি দিন। এসব সেবার দেয়ার পরও যদি রোগীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হয়, তাহলে দ্রুত অভিজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

 

তথ্যসূত্র- মেডিকেল নিউজ টুডে।

২৮ আগস্ট ২০২৩, ০৭:০৭পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।