• ঢাকা, বাংলাদেশ
  • বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

মসলার রানি এলাচের গুণাগুণ

মসলার রানি এলাচের গুণাগুণ

প্রতিকী ছবি

ফিচার ডেস্ক

মসলা জাতীয় উপাদানের মধ্যে অন্যতম ‘এলাচ’। এটি পুষ্টিগুণ ও ভেষজ উপাদানে ভরপুর একটি মসলা। মাংস, পিঠা, পায়েসসহ বিভিন্ন রান্নায় এলাচের ব্যবহার সুপ্রাচীন কাল থেকে প্রচলিত। স্বাদ ও গন্ধের জন্য এলাচ ব্যবহার হলেও এর রয়েছে নানা পুষ্টি উপাদান। যা আমরা অনেকেই জানি না।

‘আমরা বাংলাদেশ’র নিয়মিত আয়োজনের এই পর্বে এলাচের পুষ্টি ও ভেষজ গুণাবলী সম্পর্কে কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। চলুন দেখে নিই কি আছে এলাচে-

পরিচয়

এলাচ বা এলাচির বৈজ্ঞানিক নাম Elettaria cardamomum। বাংলায় এটিকে বলা হয় এলাচি। ইংরেজিতে এই মসলার নাম Cardamom, Malabar cardamom, Ceylon cardamom। এটি মসলা হিসাবে বিশ্বজুড়ে জনপ্রিয়। কোথাও কোথাও সুগন্ধি হিসেবে এলাচের তেল খুব জনপ্রিয়। একে বলা হয় মসলার রানি।

কি আছে এলাচে

উইকিপিডিয়া ও নিউইয়র্কের জনপ্রিয় স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট হেলথলাইন ডট কমে প্রকাশিত তথ্য বলছে, এলাচে রয়েছে প্রচুর স্যাচুরেটেড ফ্যাট, পলিস্যাচুরেটেড ফ্যাট, মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট। এছাড়া এতে রয়েছে পটাসিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়ামসহ নানা উপাদান।

উপকারিতা

কলকাতার জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ‘এই সময়’-এর নিবন্ধে বলা হয়েছে-

এলাচ অস্থিরতা দূর করে: অনেকেই হুটহাট করে অস্থির হয়ে পড়েন। এটা এক ধরণের রোগ। যারা এই সমস্যায় ভুগছেন, তারা নিয়মিত এলাচ খান। এতে আপনার অস্থিরতার প্রবণতা কমে যাবে। বন্ধ হবে বুক ধড়ফড় করা। নিয়মিত দুবেলা দুটো এলাচ চিবিয়ে খেয়ে নিবেন।

হৃদযন্ত্র ভালো রাখে: যারা হৃদযন্ত্রের সমস্যায় ভুগছেন, তারা নিয়মিত দিনে তিনবার একটি করে এলাচ চিবিয়ে খান। আপনার ক্ষতিগ্রস্থ হৃদযন্ত্র ভালো হবে। গরম পানিতে জ্বালিয়ে এলাচের চা পান করতে পারেন। এটিও খুব উপকারী।

ভয় ও আতঙ্কজনিত সমস্যা দূর করে: হার্ট দুর্বল হলে ভয় ও আতঙ্কজনিত সমস্যা দেখা দেয়। এটি থেকে মুক্ত থাকতে চাইলে দিনে দুবেলা দুটি এলাচ চিবিয়ে খেয়ে নিন। উপকারিতা পাবেন।

মাড়ির রক্তপাত ও দাঁতের ক্ষয় রোধ: মাড়ির রক্তপাত ও দাঁত ক্ষয়ের কারণে অনেকের মুখেই দুর্গন্ধ হয়। এটি থেকে মুক্তির জন্য মুখে এলাচ নিয়ে চিবিয়ে খেয়ে ফেলুন। এতে মুখের দুর্গন্ধ দূর হবে।

হজমশক্তি বাড়ায়: দীর্ঘদিনের খাদ্যাভ্যাসের কারণে পেটের হজমশক্তি কমে যায়। কিন্তু আপনি যদি খালি পেটে এলাচ চিবিয়ে খান, তাহলে আপনার হজমশক্তি বৃদ্ধি পাবে। এছাড়া পেট জ্বালাপোড়া করা ও পেটের যন্ত্রণা দূর হবে।

কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময়: যারা দীর্ঘদিন কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগছেন, তারা নিয়মিত এলাচের চা খেতে পারেন। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য নিরাময়ে খুবই কার্যকরী একটি পদ্ধতি।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: এলাচ ক্যান্সার প্রতিরোধে অত্যন্ত কার্যকরী। গবেষকরা বলছেন, এলাচ শুধু ক্যান্সার প্রতিরোধেই কাজ করেনা, এটি প্রাথমিক পর্যায়ের ক্যান্সার সম্পূর্ণ নিরাময় করে।

শ্বাসকষ্ট দূর করে: হুপিং কাশি, ফুসফুসে সংক্রমণ ও হাঁপানির মতো শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে চাইলে নিয়মিত এলাচ চিবিয়ে খান। অথবা এলাচের চা পান করুন।

মাথা যন্ত্রণার উপশম: তীব্র মাথা যন্ত্রণা থেকে উপশমের জন্য এলাচের চেয়ে কার্যকরী উপাদান আর নেই। মাথা ব্যথা বেড়ে গেলে একটি এলাচ চিবিয়ে খেয়ে নিন। ব্যথা পালিয়ে যাবে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে: উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ ও রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে এলাচের ভূমিকা অনেক। এটি রক্তের খারাপ উপাদান বের করে দেয়। ফলে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে। যে কারণে নিয়ন্ত্রণে থাকে রক্তচাপ।

তথ্যসূত্র: উইকিপিডিয়া, হেলথলাইন ডট কম (নিউইয়র্ক) ও ম্যাগাজিন ‘এই সময়’ (কলকাতা)।

 

এবি/এসএন

০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০১পিএম, ঢাকা-বাংলাদেশ।